খেলার সময়দ্রাবিড়ের জুনিয়র ‘ক্রিকেট প্রক্রিয়া’ কি যাদুর কাঠির ছোঁয়া?

সময় সংবাদ

fb tw
somoy
তরুণ ক্রিকেটারদের কাছে ফলাফল চায় না ভারত। তাদের দেয়া হয় নিজের মতো করে খেলার পূর্ণ স্বাধীনতা। রাহুল দ্রাবিড়ের তৈরী করা এ প্রক্রিয়া ধরে এগিয়ে যাচ্ছে ভারতের জুনিয়র ক্রিকেট।
দ্রাবিড়ের উত্তরসূরী কোচ সিতাংশু কোটাক জানালেন, পর্যাপ্ত অবকাঠামো, সুযোগ-সুবিধা আর ক্রিকেটারদের কয়েকটি গুরুত্বে ভাগ করে অনুশীলনের মাধ্যমে চলেছে এ প্রক্রিয়ার বাস্তবায়ন।
অর্থ-বিত্ত, যশ খ্যাতি সবই আছে। যে দলে খেলে এতকিছু পেয়েছেন সে ভারত দলের কোচ হওয়ার সুযোগও এসেছিল। অন্য কেউ হলে হয়তো দু’হাতে লুফে নিতেন। কিন্ত মানুষটা রাহুল দ্রাবিড়। নীরবে নিভৃতে থাকতেই বেশি পছন্দ করেন। জাতীয় দলের পরিবর্তে দায়িত্ব নিয়েছিলেন জুনিয়রদের। অনূর্ধ্ব ১৯, এ দল, একাডেমি এসবেই তার মনোযোগ। যাদুর কাঠির ছোঁয়ায় তৈরী করেছেন অসংখ্য ক্রিকেটার।
দ্রাবিড় এখন বেঙ্গালুরু জাতীয় ক্রিকেট একাডেমির কোচ। তার উত্তরসূরী সিতাংশু কোটাক। ইমার্জিং দলের হেড কোচ হিসেবে বাংলাদেশ সফরে আছেন। শোনালেন, রাহুল দ্রাবিড়ের হাত ধরে ভারতের জুনিয়র ক্রিকেটের বদলে যাওয়ার গল্প।
সিতাংশু কোটাক বলেন, ব্যাপক একটা পরিবর্তন হয়েছে। যখন আপনি ফল নিয়ে চিন্তা করবেন তখন এ তরুণদের উপর চাপ বাড়বে। সেটা না ভেবে আপনি কি প্রক্রিয়ায় যেতে চান সেটাতে গুরুত্ব দেয়া উচিত। আমরা দ্রাবিড়ের রোডম্যাপ অনুসরন করছি। মূল লক্ষ্যই হলো ক্রিকেটারদের তৈরী করা। এই যে টুর্নামেন্টে খেলতে এসেছি আমরা স্কোয়াডের সবাইকে সুযোগ দেবো। দেখতে চাই তারা কে কেমন করে।
যে প্রক্রিয়ার কথা বারবার উঠে আসছে, সে প্রক্রিয়াটা কি। সেটাও ব্যাখা করলেন ভারতীয় কোচ। বললেন রাহুল দ্রাবিড় কিভাবে ঢেলে সাজিয়েছেন ভারতের জুনিয়র ক্রিকেট।
সিতাংশু কোটাক বলেন, প্রক্রিয়া হলো, আপনার ভালো অবকাঠামো থাকবে। পর্যাপ্ত ক্রিকেটার থাকবে। রাহুল দ্রাবিড় ৫টা ক্যাম্প করে দিয়েছিলেন। প্রত্যেক দলে ২০ থেকে ২২ জন ক্রিকেটার ছিলো। তারা নিজেদের মধ্যে ৮ থেকে ১০ টা ম্যাচ খেলেছে। আমি যখন দায়িত্ব নিয়েছে কাজটা সহজ হয়ে গেছে।
বয়সভিত্তিক দল ও জাতীয় দলের পাইপলাইনের ক্রিকেটারদের কাছে ম্যাচের ফলাফল চায় না ভারত। দ্রাবিড় তত্ত্ব অনুসরণ করে এগিয়ে যাচ্ছে ভারত। ম্যাচের ফল নয়, তাহলে কিসে গুরুত্ব দিচ্ছে ভারত?
সিতাংশু কোটাক বলেন, আমি ফলাফলে নয় প্রক্রিয়ায় গুরুত্ব দিচ্ছি। যদি প্রক্রিয়া ঠিক থাকে ফল আসবেই। যে একাদশই গড়বো আমি বিশ্বাস করি তাদের জেতা উচিত। তবে সেজন্য আমাকে শক্তিশালী একাদশ গড়তে হবে সেরকম কোনো কথা নেই।
বাংলাদেশের বয়সভিত্তিক দলগুলো হারিয়ে দিচ্ছে বড় বড় দলগুলোকে। মনে হবে, ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে কোনো ফারাক নেই। কিন্তু বড় মঞ্চে এসে নিজেদের ধরে রাখতে পারে না জুনিয়র টাইগাররা। ভারতের মতো বাংলাদেশেও এরকম একটা প্রক্রিয়া জরুরি নয় কি?

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
ভাইরাল
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
Latest News
আপনিও লিখুন
ছবি ভিডিও টিভি
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop