বাণিজ্য সময়মালয়েশিয়ায় 'বি টু বি' পদ্ধতিতে কর্মী পাঠানোর উদ্যোগ

আশীষ প্রসূন

fb tw
somoy
মালয়েশিয়ায় সরকারি পর্যায়ে জনশক্তি রপ্তানি ব্যর্থ হওয়ার পর, এবার বি টু বি পদ্ধতিতে কর্মী পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রায় সাত বছর পর মালয়েশিয়ার বাজার খুলে দেয়ার প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করতে আগামী রোববার ঢাকায় আসছে মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি দল।
এক্ষেত্রে, সার্বিক খরচ এক লাখ টাকার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখার কথা জানিয়েছেন, ব্যক্তিখাতের বিশেষজ্ঞরা। প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি দলের সাথে আলোচনার মাধ্যমেই জনশক্তি রপ্তানি প্রক্রিয়া ও খরচের পরিমাণ চূড়ান্ত করা হবে। এছাড়া, বেসরকারি উদ্যোক্তারা কর্মী পাঠালেও, সরকারের কঠোর মনিটরিং থাকবে।
নানা জটিলতায় প্রায় চার বছর বন্ধ থাকার পর ২০১২ সালে সরকারী পর্যায়ে বা জি টু জি পদ্ধতিতে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠাতে দু'দেশ সম্মত হয়। এ প্রক্রিয়ায় অন্তত ১০ লাখ কর্মী পাঠানোর লক্ষ্যে সারাদেশ থেকে কর্মী বাছাই করা হলেও মালয়েশিয়া যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে মাত্র সাড়ে সাত হাজার কর্মী।
এ প্রক্রিয়া ব্যর্থ হওয়ার পর, এবার বিজনেস টু বিজনেস বা বি টু বি পদ্ধতিতে কর্মী পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দু'দেশ। দীর্ঘ সাত বছর পর জনশক্তি রপ্তানির সুযোগ পাওয়ায় বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, সকল নিয়ম মেনেই, কর্মী পাঠানোর খরচ এক লাখ টাকার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখবেন তারা। বায়রা জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আলী হায়দার চৌধুরী বলেন, 'অতীতের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে সামনের পরিকল্পনা করতে হবে।'
আর, বায়রা মালয়েশিয়া বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি মো.গিয়াসউদ্দিন বাবুল বলেন, 'আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে যেন কোন রকমে লোক না পাঠায়। ওখানে যদি সরাসরি কোম্পানিগুলো লোক নেয় তাহলে আগের যে সমস্যা হয়েছিল তা আর হবে না।'
তবে, আবারও জটিলতার আশংকা করে বিশেষজ্ঞরা বলেন, সফলভাবে জনশক্তি রপ্তানির ক্ষেত্রে সরকারের শক্তিশালী মনিটরিং দরকার। জনশক্তি রপ্তানি বিশেষজ্ঞ ড. মো. জালালউদ্দিন শিকদার বলেন, '২০০৪-৫ এ মালয়েশিয়ান সরকার কন্ট্রাকগুলো ব্যবসায়ীদের কাছে ছেড়ে দিয়েছিল। আর যে পরিমাণ লোক দরকার তার চেয়ে বেশি লোক নিয়েছিল।'
এদিকে, বি টু বি পদ্ধতিতে কর্মী নেয়ার প্রক্রিয়া ঠিক করতে রোববার মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি দলের আসার কথা জানিয়ে প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী বলেন, বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় কর্মী পাঠানো হলেও, প্রতারণা এবং অতিরিক্ত ব্যয় ঠেকাতে সরকার তৎপর রয়েছে।
প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেন, 'নতুন বাজার সৃষ্টির পাশাপাশি, অভিবাসী বাংলাদেশীদের সেবা দিতে সে দেশের বাংলাদেশি শ্রম শাখাকে শক্তিশালী করা হবে।'

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop