সিটি নির্বাচনকুসিকে জাতীয় নির্বাচনের আমেজ

সময় সংবাদ

fb tw
বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে এটি প্রথম বড় কোনো নির্বাচন। প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের লড়াইয়ে অনেকটা জাতীয় নির্বাচনের আবহে দলীয় প্রতীকের এই স্থানীয় নির্বাচন। সংশ্লিষ্টদের মতে, এটি শুধু রাজনৈতিকই নয় বরং নিরপেক্ষতা এবং গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণে নির্বাচন কমিশনের জন্য অগ্নি পরীক্ষা।
২ লক্ষ সাত হাজার ৩৮৪ জন ভোটারের কুমিল্লা সিটি করপোরেশন। ভোটের মাঠে চার মেয়রপ্রার্থী। টেবিল ঘড়ি প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন মামুনুর রশিদ আর তারা প্রতীক নিয়ে মাঠে আছেন জেএসডির শিরিন আক্তার। যদিও আলোচনার মূল কেন্দ্রে নৌকা আর ধানের শীষ।
নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা এক সময় ছিলেন কুমিল্লা পৌরসভারই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। ছিলেন আদর্শ সদর উপজেলার ভাইস-চেয়ারম্যানও। সর্বশেষ সিটির ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। কুমিল্লার রাজনীতিতে প্রভাবশালী আফজাল খানের মেয়ে সীমা আওয়ামী লীগের টিকিট পাওয়ার পর থেকেই দিন-রাত এক করে চষে বেড়িয়েছেন নির্বাচনী মাঠ। নগরীর জলাবদ্ধতা দুর করাসহ ২৯টি প্রতিশ্রুতি দেয়া এই প্রার্থী জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।
অন্যদিকে গতবার সীমার বাবার সঙ্গেই মেয়র পদে লড়েছিলেন বিএনপির প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। এবার প্রতিদ্বন্দ্বী কন্যা। তাই জয়-পরাজয়ের হিসেবটাকেও অগ্নি পরীক্ষা হিসেবে নিয়েছেন সাক্কু। তার দেয়া ২৭ দফা প্রতিশ্রুতি কতটা কাজে আসে, তা বলে দিবে ৮ ঘণ্টাব্যাপী ভোটের পরবর্তী ফলাফল।
শুধু প্রার্থীদেরই নয়, দলীয় প্রতীকের এই স্থানীয় নির্বাচন অনেকটা রূপ নিয়েছে প্রধান দুই দলের রাজনৈতিক লড়াইয়ে। তবে নির্বাচন কমিশনেই আস্থা রাখার কথা জানিয়েছে দু'দলই।
প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেন, 'নিজেদের নিরপেক্ষতা প্রমাণ করার জন্য তারা সরকারি দলের প্রতি একটু বেশি নিষ্ঠুর আচরণ করেন। এমনটা যেনো না করা হয়।'
এদিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, 'আইনশৃঙ্খলা রক্ষার ব্যাপারে তারা সিরিয়াস এবং তারা যে ব্যবস্থা করেছেন সেটাতেই সম্ভব ঠিক হয়ে যাওয়া।'
এদিকে প্রথমবারের মত কোনো গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন পরিচালনা করতে যাওয়া নতুন কমিশনও নিজেদের অবস্থান পরিষ্কার করে কয়েকবারই বলেছে, সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের পাশাপাশি নিরপেক্ষতার প্রমাণ দেয়াই হবে তাদের মূল লক্ষ্য।
নির্বাচন কমিশন সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বলেন, 'বিএনপির প্রতিনিধি দল দু'য়েকটি বিষয়ে অভিযোগ করেছেন। আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিরাও কিছু অভিযোগ করেছেন। কমিশনারের মেসেজটা পরিষ্কার। রিটার্নিং অভিসারকে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে বলেছেন।'
কুমিল্লা সিটির ২৭ টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলার পদে ১৪১ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে লড়ছেন ৪০ জন প্রার্থী। এ নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১০৪টি। আর ভোটকক্ষ ৬২৮টি।
যে কোন ধরনের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পর্যাপ্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop