বাংলার সময়জীবন-জীবিকার একমাত্র উৎস হারিয়ে দিশেহারা টেকনাফের জেলেরা

কমল দে

fb tw
দু’দেশের সংঘাতময় পরিস্থিতি ঠেকাতে টেকনাফের নাফ নদীতে মাছ ধরা নৌকা এবং সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলে আবারো নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে প্রশাসন। এক মাসের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে পহেলা নভেম্বর থেকে নৌকা এবং জাহাজ চলাচল চালু হওয়ার কথা থাকলে উপজেলা প্রশাসন বুধবার থেকে পুনরায় বিধি নিষেধ আরোপ করে। ফলে চরম মানবিক বিপর্যয়ে পড়েছে নাফ নদীতে মাছ ধরার ওপর নির্ভরশীল ১২শ জেলে।
বাংলাদেশ-মিয়ানমারের ২শ ৮ কিলোমিটার সীমন্তের মধ্যে ৫৪ কিলোমিটারই টেকনাফের নাফ নদী। এছাড়া বঙ্গোপসগারে সীমান্ত রয়েছে কয়েক কিলোমিটার। নাফ নদীর বাংলাদেশ অংশে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে ১২শ জেলে পরিবার।
কিন্তু গত ২৫শে আগষ্ট থেকে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ শুরু হলে মাদক পাচার বন্ধসহ মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সংঘাতমূলক পরিস্থিতি এড়াতে নাফ নদীতে সব ধরণের মাছ ধরা নৌকার উপর এক মাসের বিধি নিষেধ আরোপ করা হয়।
পহেলা নভেম্বর থেকে সে বিধি নিষেধ উঠে যাওয়ার কথা থাকলেও নতুন করে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।
কক্সবাজার টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন ছিদ্দিক বলেন, 'মিয়ানমার যাতে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা না ঘটাতে পারে তার জন্য এই পদক্ষেপ দেওয়া হয়েছে।'
পাশাপাশি বন্ধ রাখা হয়েছিলো টেকনাফ থেকে সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচলও। এই রুটে চলাচলকারী জাহাজগুলোকে মিয়ানমারের নাইক্ষ্যংদিয়া চরের কাছাকাছি দিয়ে চলাচল করতে হয় বলে বলবৎ রাখা হয়েছে জাহাজ চলাচলের বিধি নিষেধও।
কক্সবাজার টেকনাফ থানার ও সি মোহাম্মদ মাঈনুদ্দিন খান বলেন, 'আমাদের দেশের নাগরিক যেন কোনো দুর্ঘটনার শিকার না হয়, সে জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে।'
এদিকে, জীবন-জীবিকার একমাত্র উৎস হারিয়ে দিশেহারা টেকনাফের জেলেরা। গত এক মাসের বেশি সময় ধরে মাছ ধরতে না পারলেও পায়নি কোনো সরকারি সহায়তা তারা।
তারা বলেন, 'রাতে নিষেধ মাছ ধরা। দিনের বেলা মাছ ধরলে কোনো সমস্যা নেই। তারপরেও ওনাদের কথা শুনছিলাম। এখন দিনেও বন্ধ করে দিছে।'
তবে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন ছিদ্দিক জানান, সরকারি সহায়তার জন্য প্রায় ১২শ জেলের একটি তালিকা দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।
নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশে পর্যটন মৌসুম ধরা হলেও অক্টোবর থেকে মার্চ পর্যন্ত সেন্টমার্টিন যাওয়ার অনুমতি পায় পর্যটকবাহী  জাহাজগুলো। এ মৌসুমে প্রতিদিন ৫ হাজার পর্যটক যাতায়াত করেন।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop