বাণিজ্য সময়তিন সপ্তাহের ব্যবধানে দ্বিগুণ দামে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ

বাণিজ্য সময় ডেস্ক

fb tw
দফায় দফায় বেড়ে তিন সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা বাজারে দ্বিগুণ দামে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। এর কারণ হিসেবে অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে একটি দেশের ওপর আমদানি নির্ভরশীলতাকেই দায়ী করছেন ব্যবসায়ীরা। প্রেক্ষাপট বিবেচনায় বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, উৎপাদনশীলতা বাড়ানোর মাধ্যমে দেশিয় উৎপাদনেই ভোক্তা চাহিদা পূরণ করা সম্ভব। এক্ষেত্রে গবেষণার প্রসারে নজর দেয়ার পরামর্শ তাদের।
নিত্যপণ্যের বাজারে দফায় দফায় বাড়ছে পেঁয়াজের দাম। প্রায় এক মাস ধরে পচনশীল এই পণ্যের উর্ধমূখী দামে বাজারে এসে হিমশিম খেতে হচ্ছে ভোক্তাদের। দাম নিয়ন্ত্রণে সরকারের স্পষ্ট কোন উদ্যোগ নেই বলেও অভিযোগ তাদের। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব মতে, দেশে প্রতিবছর পেঁয়াজের চাহিদা ২২ থেকে ২৪ লাখ মেট্রিক টন। এর প্রায় ৮০ ভাগ-ই পূরণ হয় দেশিয় উৎপাদনে। ২০ শতাংশ মেটানো হয় আমদানির মাধ্যমে। যার প্রায় ৯৫ ভাগ আসে ভারত থেকে। বাকিটুকু আসে চীন, মিশর আর পাকিস্তান থেকে।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমদানির বিকল্প লাভজনক কোন উৎস না থাকায় দেশের বাজার নিয়ন্ত্রণ করছেন ভারতের ব্যবসায়ীরা। গেল মাসের ১৭ তারিখ থেকে ২৮ তারিখের মধ্যে প্রতি টন পেঁয়াজের দাম ২১০ ডলার থেকে ৬শ' ডলার করেছেন ভারতের রপ্তানিকারকরা। তবে পেঁয়াজের সরবরাহ সংকট নেই বলে জানান তারা।
পেয়াজ আমদানিকারক মো. মোশাররফ সিকদার বলেন, 'প্রায় এক দেড়মাস হলো ইন্ডিয়ান পেঁয়াজটা ১০ রুপি থেকে ৪০ রুপি হওয়ায় এখানেও দাম বৃদ্ধি পেয়েছে।'
নতুন পেঁয়াজ বাজার এলেই কমে আসবে দাম। সেজন্য অপেক্ষা করতে হবে আরও প্রায় ২ মাস। এসময়ে পেঁয়াজের বাজার সহনীয় পর্যায়ে রাখতে সরকারি বিপণন সংস্থা টিসিবিকে শক্তিশালী করার পরামর্শ ব্যবসায়ীদের। আর ভবিষ্যতে সংকট মোকাবেলায় পেঁয়াজ সংরক্ষণে সরকারকে উদ্যোগী হওয়ার কথা বলছেন তারা। বাজার বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রযুক্তি আর উদ্ভাবনের এই যুগে গবেষণার প্রসারে নজর দিলে পণ্যের চাহিদা পূরণে আর নির্ভর করতে হবে না অন্য দেশের ওপর।
অর্থনীতিবিদ ড. মো. বেলাল বলেন,  'উৎপাদনশীলতা যদি বৃদ্ধি পায়, তবে আমরা কমদামে পেঁয়াজ খেতে পারবো। তবে এর জন্য সরকারের অনেক বিশ্লেষণ করতে হবে।'
রাজধানীর বাজারে, খুচরা পর্যায়ে দাম ওঠা-নামার মধ্যে দু'দিন ধরে প্রতিকেজি দেশি পেঁয়াজ ৭৬ থেকে ৮০ টাকায় আর ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকার মধ্যে। যা গেল বছর একই সময়ে বিক্রি হয়েছে ২৫ থেকে ২৮ টাকা ও ১৮ থেকে ২২ টাকার মধ্যে।
দেশে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে বিকল্প বাজার তৈরির মাধ্যমে অবশ্যই কমাতে হবে একক দেশের ওপর আমদানি নির্ভরশীলতা। তবে, এক্ষেত্রে চাহিদা যোগানের ঘাটতি পূরণে অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বাড়ানোর দিকে নজর দেয়াই হতে পারে সবচেয়ে উত্তম সমাধান, এমনটাই মনে করেন ভোক্তা ব্যবসায়ী আর বাজার বিশ্লেষকরা।

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop