বাংলার সময়কুয়াশায় শেষ সূর্যাস্তের দেখা না পাওয়ায় হতাশ কক্সবাজারের পর্যটকেরা

কমল দে

fb tw
এর আগে গতকাল বছরের শেষ সূর্যকে বিদায় দেয় বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে আসা হাজার হাজার পর্যটক। নতুন বছরকে বরণ করে নিতে সৈকতে নেয়া হয় নানা আয়োজন। পর্যটকদের আকর্ষণে হোটেল-মোটেলগুলো সেজেছে বর্ণিল সাজে। নিরাপত্তার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছে ট্যুরিস্ট ও জেলা পুলিশ। 
কক্সবাজারের ছয়টি পয়েন্টে তিল ধারণের ঠাঁই নেই। কিন্তু সৈকতে এসে পর্যটকদের কিছুটা হতাশায় ভুগতে হয়েছে। কারণ, এমনিতেই মেঘে ঢাকা ছিলো সূর্য। সেই সঙ্গে সন্ধ্যার কুয়াশা চলে আসায় সেই সূর্যাস্ত আর দেখা যায়নি। 
সৈকতে লাখো পর্যটকের ভিড় জমলেও ছিলেঅ না কোনো আয়োজন। অন্যান্য বছর এখানে পাঁচটা পর্যন্ত অনুষ্ঠান চললেও এবার তা ছিলো না। নিরাপত্তার স্বার্থে সব ধরণের অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ করেছেন প্রশাসন।
সমুদ্র সৈতক ঘুরতে আসা এক পর্যটক বলেন, ‘নতুন বছরকে উদযাপন করতে এসেছি। কিন্তু এখানে কোনো ধরণের আমেজ নেই। আমরা অনেক হতাশ।’
অপরদিকে লাখো পর্যটকের ভিড় সামলানোর পাশাপাশি কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুরো এলাকাকে নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে রেখেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। বিশেষ করে টুরিস্ট পেুলিশের কার্যক্রম ছিলো চোখে পড়ার মতো। 
এক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য জানান, ‘প্রত্যেক পয়েন্টে পয়েন্ট পোশাক পরিহিত পুলিশ সদস্য আছে এবং সাদা পোশাকের পুলিশও আছে। এছাড়াও বিচবাইক দিয়ে পর্যাপ্ত পরিমাণ পুলিশ টহল দিচ্ছে।’
হোটেল মালিকরা জানান, এখানকার ৪৫০ টি হোটেল এখন পর্যটকে পরিপূর্ণ। 
এক পর্যটক জানান, ‘থার্টি ফার্স্ট নাইটে ভ্যাকেশন হয়েছে। ফ্যামিলির সবাই মিলে অনেক মজা করছি।’
এক হোটেল মালিক বলেন, ‘তাদের এন্টারটেইনমেন্টর জন্য কিছু কালচারাল ফাংশন ইন হাউজে করার আয়োজন করেছি।’
আরেক হোটেল মালিক জানান, ‘আমরা আকর্ষণীয় কিছু প্যাকেজ দিয়েছি। সাথে ফুডেরও কিছু প্যাকেজ আছে।’

আরও সংবাদ

বাংলার সময়
বাণিজ্য সময়
বিনোদনের সময়
খেলার সময়
আন্তর্জাতিক সময়
মহানগর সময়
অন্যান্য সময়
তথ্য প্রযুক্তির সময়
রাশিফল
লাইফস্টাইল
ভ্রমণ
প্রবাসে সময়
সাক্ষাৎকার
মুক্তকথা
বাণিজ্য মেলা
রসুই ঘর
বিশ্বকাপ গ্যালারি
বইমেলা
উত্তাল মার্চ
সিটি নির্বাচন
শেয়ার বাজার
জাতীয় বাজেট
বিপিএল
শিক্ষা সময়
ভোটের হাওয়া
স্বাস্থ্য
ধর্ম
চাকরি
পশ্চিমবঙ্গ
ফুটবল বিশ্বকাপ
সংবাদ প্রতিনিধি
বিশ্বকাপ সংবাদ
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন
GoTop